BMBF News

ই.ডি কর্মচারীদের বর্তমান সম্মানী চারগুন বৃদ্ধিসহ ১৫ দফার দাবি

১,১৬৮
নিজস্ব প্রতিবেদক :

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ কে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে স্মার্ট ডাক বিভাগ লক্ষ্যে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল ডাকঘরের (ই.ডি) কর্মচারীদের বর্তমান সম্মানী ভাতা চারগুণ বৃদ্ধিসহ ১৫ দফা দাবীতে- বাংলাদেশ পোস্টাল (ই.ডি) কর্মচারী ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সমীপে (দ্বিতীয়বার) স্মারকলিপি পেশ করা উপলক্ষে ২৪শে জুন সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করেনবাংলাদেশ পোস্টাল ই.ডি. কর্মচারী ইউনিয়ন কেন্দ্ৰীয় সংস্থা।

সংস্থাটির সভাপতি মোঃ শাহনেওয়াজ চৌধুরী ও সাধারন সম্পাদক এম.এ. হাকিম নেতৃত্বের সংবাদ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্যরা বলেন,

“বাংলাদেশ পোস্টাল (ই.ডি) কর্মচারী ইউনিয়ন” ১৯৭২ সনে ইহার যাত্রা শুরু। আমি তখন থেকে উক্ত ইউনিয়নের একজন নবীন সদস্য/কর্মী। এক্ষেত্রে আমার সাংগঠনিক কার্যক্রমের একটি স্মরণীয় ঘটনা উল্লেখ করতে চাই। ১৯৭৩ সনে মার্চ মাসে তখনকার প্রাপ্ত ভাতা বৃদ্ধির দাবীতে আন্দোলরত কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃত্বে একটি মিছিল বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাতের জন্য আমরা ধানমন্ডিতে যাই। তখন বেলা প্রায় ১১টা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়ী থেকে বঙ্গভবনে যাচ্ছিলেন। সঙ্গে জনাব তোফায়েল আহমদ। আমরা বাড়ী সংলগ্ন সম্মুখ রাস্তায় ব্যানার হাতে আমিসহ ৩০/৩৫ জন ই.ডি. কর্মচারীর একটি মিছিল দাঁড়িয়ে ছিলাম। গাড়ী থেকে দেেেখ ব্যানাটির কাছে গাড়ীটি থামিয়ে বঙ্গবন্ধু বললেন, “ ওরা কারা”? জনাব তোফায়েল সাহেব জবাব দিলেন “তারা ডাক বিভাগের অবিভাগীয় কর্মচারী” । তিনি আবার বললেন, “ওরা কি চায়”? জবাব দিলেন, “তারা আপনার সাথে সাক্ষাত করতে চায়” । বঙ্গবন্ধু বললেন, “তাদেরকে বঙ্গভবনে আসতে বলো” ।

আমরা তখন ব্যানার হাতে মিছিল সহকারে দ্রুত গতিতে বঙ্গভবনে পৌঁছাতেই ৫ জন নেতাকে প্রবেশের অনুমতি দেয়া হয়। (ইহাতে আমার যাওয়ার সুযোগ হয়নি।) নেতৃবৃন্দ সাক্ষাতে সবিনয়ে যখন বঙ্গবন্ধুকে জানান- আমরা মাসিক মাত্র ৩৫/- টাকা সম্মানী ভাতায় নিয়োজিত ডাক বিভাগের কর্মচারী। তখন বঙ্গবন্ধু অত্যন্ত ক্ষুব্ধ কণ্ঠে জনাব তোফায়েল সাহেবকে বললেন, আমার দেশে কি এখনও ৩৫/- টাকা সম্মানী ভাতায় কোন কর্মচারী আছে ? অতি সত্বর তাদের ফাইল পত্র পাঠাতে ডাক বিভাগকে তলব করো” । পরবর্তী ১ মাসের মধ্যে আমাদের সম্মানী ভাতা ৭৫/- টাকায় উন্নীত করেন জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি গ্রামীন ডাক সেবার মান উন্নয়ন এবং কর্মচারীদের কল্যানের সুদুর প্রসারী পরিকল্পনার বিষয়েও তখন আলোকপাত করেন। কিন্তু ১৯৭৫ সনে দেশী বিদেশী ষঢ়যন্ত্রকারীদের চক্রান্তে জাতির জনক সপরিবারে শাহাদাতবরণ করাতে ই.ডি. কর্মচারীদের আশা পূরণ হয়নি। তবুও সেই মহানুবতার কথাটি সাড়ে ৮ হাজার ডিজিটাল ডাকঘরের ২৩ হাজার কর্মচারী ও তাদের প্রায় ১ লক্ষ পরিবার বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণে সকলেই স্মরণ করেন।

বিগত ৫০ বছরের মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশ পোস্টাল (ই.ডি.) কর্মচারী ইউনিয়নের আন্দোলন সংগ্রামের ফলে ডিজিটাল ডাকঘরের একজন পোস্ট মাস্টারের মাসিক সম্মানী ভাতা ১৩ ধাপে ৩৫/- টাকা থেকে বর্তমানে ৪৪৬০/- টাকায় উন্নীত হয়েছে। তন্মমধ্যে আওয়ামীলীগ সরকারের শাসনামলেই বেশী বৃদ্ধি হয়। সে জন্য সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই ।

সর্বশেষ ২০১৮ সালে মাননীয় মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার মহোদয়ের সদয় অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ৭৭% শতাংশ ভাতা বৃদ্ধির পর তিনি আশান্বিত করেছিলেন, পরবর্তীতে ভাতাপ্রাপ্ত অন্যান্য কর্মচারীদের ন্যায় ভাতা আরো বাড়ানো হবে। কিন্তু উহার কোন ফলোদয় না হওয়াতে বিগত ২২/১১/২০২ তারিখে জাতীয় প্রেস ক্লাবচত্বরে মানবন্ধন কর্মসূচী পালন শেষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমীপে দাবী নামা সম্বলিত প্রথমবার একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয় এবং উহার অনুলিপি ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মাননীয় মন্ত্রী, সংসদীয় স্থায়ী কমিটির মাননীয় সভাপতি, মাননীয় সচিব ও মহাপরিচালক মহোদয় বরাবরে প্রদান করা হয় । যার প্রেক্ষিতে সংসদীয় কমিটি ই.ডি. কর্মচারীদের সম্মানী ভাতা ৮০% শতাংশ বৃদ্ধির সুপারিশ করেন এবং গত ২৭ মে/২০২১ তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আগারগাঁও নতুন ডাকভবন উদ্বোধন কালে মাননীয় ডাক মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার সদয় ই.ডি কর্মচারীদের সম্মানী ভাতা বৃদ্ধির ব্যাপারে অনুরোধ জানালে- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সদয় ডাক বিভাগের আয়ের লভ্যাংশ থেকে ই.ডি. কর্মচারীদেরকে আর্থিক সুবিধা/কমিশন প্রদানের নির্দেশনা দেন। কিন্তু, অতি পরিতাপের বিষয় দীর্ঘ দুই বছর অতিক্রান্তেও মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর নির্দেশনার কোন সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। উল্লেখ্য, ভাতায় নিযুক্ত কর্মচারীদের ক্ষেত্রে দেশের চলমান অবস্থার প্রেক্ষাপটে তিন বছর অন্তর অন্তর প্রদত্ত ভাতা পুনঃনির্ধারণের বিধান থাকা সত্ত্বেও সাড়ে ৪ বছর অতিক্রান্তে আমাদের ভাতা বৃদ্ধি করা হয়নি।

কাজেই, বর্তমান বৈশ্বিক সংকটের কারণে মূল্যস্ফীতির উর্দ্ধগতির চাপে দিশাহারা ই.ডি. কর্মচারীদের চলমান সম্মানী ভাতার ৪ গুণ বৃদ্ধিসহ ১৫ দফা দাবী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে আজ পুনরায় স্মারকলিপি প্রদানে কর্মচারীগণ বাধ্য হচ্ছেন।

উপরোক্ত বিবরণীর আলোকে ২০২১/২০২২ সালে ডাক কর্তৃপক্ষ ই.ডি. কর্মচারীদের চলমান ভাতা বৃদ্ধির ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহণে তাহাদের জাতীয় পরিচয়পত্রসহ অনেক তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করে কর্মচারীদেরকে বারবার আশ্বান্বিত করেছেন। কিন্তু ভাতা বাড়েনি। উল্লেখ্য, গত ১৪/০৩/২০২২ খ্রিঃ তৎকালীন মহাপরিচালক জনাব মোঃ সিরাজ উদ্দিন অত্র ইউনিয়নের কেন্দ্ৰীয় ১০ জন প্রতিনিধির সাথে ডাকভবনে এক আনুষ্ঠানিক বৈঠকে দাবী-দাওয়ার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনান্তে ভাতা বৃদ্ধির আশ্বাস প্রদান করেছিলেন। সর্বশেষ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ খ্রিঃ মাসে ডাক অধিদপ্তর কর্তৃক অবিভাগীয় (ই.ডি.) পোস্ট অফিসের সেবার মান ও ই.ডি. কর্মচারীদের সম্মানীভাতা বৃদ্ধির বিষয়ে ডাটাবেজ প্রণয়নের নতুনভাবে তথ্য উপাত্ত চাহিয়া বিভাগীয় পর্যায়ে নির্দেশনা জারী করা হয়েছে বলে জানা যায় । কিন্তু উহার চাহিদামত তথ্যাদি প্রেরণের এবং ভাতা বৃদ্ধির কোন আলামত পরিলক্ষিত হচ্ছেনা । যার ফলে ই.ডি. কর্মচারীগণ হতাশাগ্রস্থ এবং ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.